Lifestyle

সামান্য মাথা ব্যথা ভয়ঙ্কর রুপ ধারণ করছে না তো ?

প্রতিদিন কম বেশি মানুষ মাথা ব্যথায় বা মাইগ্রেনের শিকার হচ্ছেন। এই ব্যথা অল্প থেকে শুরু হয়ে মারাত্মক রুপ বা আকার ধারণ করছে ৷ যদি মাথা ব্যথা স্বাভাবিকের চেয়ে খানিকটা বেদনাদায়ক বলে মনে হয় এবং সাধারণ টানাপোড়েনের মাথাব্যথা বা মাইগ্রেনের চেয়ে আলাদা মনে হয় বা একটানা এই ব্যথা অনুভব হচ্ছে কিছুতেই কমছে না তবে এটি হতে পারে অন্য কোন কিছুর লক্ষণ। বেশিরভাগ মাথাব্যথা উদ্বেগের কারণ নয়। এই অল্প অল্প মাথা ব্যথা থেকে হতে পারে মারাত্মক ধরনের মস্তিষ্কের টিউমার। মাথাব্যথা মস্তিষ্ক টিউমারের সাধারণ লক্ষণ।

ব্রেন টিউমার বা মস্তিষ্কের ক্যান্সার হল মস্তিস্কের অস্বাভাবিক কোষগুলির ভর বা বৃদ্ধি। বিভিন্ন ধরণের মস্তিষ্কের টিউমার রয়েছে। কিছু মস্তিষ্কের টিউমারগুলি নন-ক্যানসারাস (সৌম্য) এবং কিছু ক্যান্সারযুক্ত (ম্যালিগন্যান্ট) হয়। মস্তিষ্কের টিউমারগুলি মস্তিস্কে শুরু হতে পারে বা দেহের অন্যান্য অংশে শুরু হয়ে মস্তিষ্কে ছড়িয়ে যেতে পারে। 

প্রাথমিক মস্তিষ্কের টিউমারগুলি মস্তিষ্কের কাছাকাছি টিস্যুতে উদ্ভূত হয় যেমন ঝিল্লি (মেনিনেজ), ক্রেনিয়াল স্নায়ু, পিটুইটারি গ্রন্থি বা পাইনাল গ্রন্থিতে। যখন প্রাথমিক কোষগুলি তাদের ডিএনএতে ত্রুটি (মিউটেশন) অর্জন করে তখন প্রাথমিক মস্তিষ্কের টিউমারগুলি শুরু হয়। এই রূপান্তরগুলি কোষগুলি বৃদ্ধি এবং বিভক্ত হওয়ার হার বাড়িয়ে দেয় এবং যখন সুস্থ কোষগুলি মারা যায় বা ক্ষতিগ্রস্ত হয় তখন বাঁচতে থাকে। ফলে অস্বাভাবিক কোষগুলির বৃদ্ধি পায় যা একটি টিউমার তৈরি করে। প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে প্রাথমিক মস্তিষ্কের টিউমারগুলি মাধ্যমিক মস্তিষ্কের টিউমারগুলির তুলনায় খুব কম দেখা যায়। যেখানে ক্যান্সার অন্য স্থানে শুরু হয় এবং মস্তিষ্কে ছড়িয়ে পড়ে। প্রাথমিক পর্যায়ে মস্তিষ্কের টিউমারের কোনও লক্ষণীয় লক্ষণ দেখা যায় না। তবে মস্তিষ্কে মস্তিষ্ক বা স্নায়ুগুলির উপর চাপ প্রয়োগের ফলে পর্যাপ্ত আকার ধারণ করে যা মাথা ব্যথার কারণ হতে পারে। মস্তিষ্কের টিউমারের ব্যথার প্রকৃতি, হতাশা বা মাইগ্রেনের মাথাব্যথার চেয়েও অনেকটা  আলাদা বা তীব্র হয়ে থাকে। মস্তিষ্কে বা মাথার খুলি ( এটি অত্যন্ত অনমনীয়)  যা মস্তিস্ককে ঘিরে রাখে, এই জাতীয় সীমাবদ্ধ জায়গার ভিতরে যে কোনো ধরনের  বৃদ্ধি সমস্যার কারণ হতে পারে। মস্তিষ্কের টিউমারগুলি ক্যান্সারযুক্ত (ম্যালিগন্যান্ট) বা নন ক্যান্সারাস (সৌম্য) হয়ে থাকে। সৌম্য বা ম্যালিগন্যান্ট টিউমারগুলি বৃদ্ধি পেলে এগুলি খুলির অভ্যন্তরে চাপ বাড়িয়ে তুলে। যা মস্তিষ্কের ক্ষতির কারণ হতে পারে এবং এটি প্রাণঘাতী হতে পারে। মস্তিষ্কের টিউমারগুলি দুভাগে বিভক্ত। যথা-

  • প্রাথমিক টিউমার (Primary Tumour) 
  • গৌণ টিউমার ( Secondary Tumour)

প্রথমে মস্তিষ্কে একটি প্রাথমিক টিউমার উদ্ভূত হয়। অনেক প্রাথমিক মস্তিষ্কের টিউমার সৌম্য। একটি গৌণ মস্তিষ্কের টিউমার বা মেটাস্ট্যাসিস টিউমার হিসাবেও পরিচিত। যখন ক্যান্সার কোষগুলি অন্য স্থানে উৎপত্তি হয় যেমনঃ ফুসফুস, ডিম্বাশয় বা স্তন হতে মস্তিষ্কে ছড়িয়ে পড়ে তখন তা গৌণ মস্তিষ্কের টিউমার বা মেটাস্ট্যাসিস হিসাবে ধারণা করা হয়। সব ধরণের মস্তিষ্কের টিউমারগুলি লক্ষণ তৈরি করতে বা লক্ষণ দেখা দিতে জড়িত মস্তিষ্কের অংশের উপর নির্ভর করতে হয়।

 প্রাথমিক লক্ষণ গুলো হল-

  • মাথাব্যথা
  • খিঁচুনি
  • দৃষ্টিশক্তি সমস্যা
  • বমি এবং 
  • মানসিক পরিবর্তন। 

মাথাব্যথা ধীরে ধীরে শুরু হয় এবং বমি বমি ভাবের সাথে চলে যায়। এর সাথে আরও কিছু লক্ষণ দেখা দিতে পারে তারমধ্যে হাঁটা, কথা বলা বা সংবেদন সহ নানান সমস্যা সচরাচর দেখা যায়। রোগটি বাড়ার সাথে সাথে মানুষের অজ্ঞান হওয়ার প্রবণতা বেড়ে যায়। মস্তিষ্কের টিউমারগুলি প্রায়শই এমন লোকেদের মধ্যে ঘটে থাকে যাদের পূর্বে ক্যান্সারের ইতিহাস রয়েছে। তবে কিছু ক্ষেত্রে, মেটাস্ট্যাসিস ব্রেন টিউমার ক্যান্সারের প্রথম লক্ষণ হতে পারে যা দেহের অন্য স্থানে শুরু হয়েছিল। প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে প্রাথমিক মস্তিষ্কের টিউমারগুলির তুলনায় গৌণ মস্তিষ্কের টিউমারগুলি অনেক বেশি সাধারণ। এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৯০,০০০ এর বেশি লোক প্রতিবছর মস্তিষ্কের টিউমারে আক্রান্ত হয়। 

  • মস্তিষ্ক টিউমারের কিছু ঝুঁকির কারণ রয়েছে। যেমনঃ
  • ভিনাইল ক্লোরাইড
  • অ্যাপস্টাইন 
  •  বার ভাইরাস
  • আয়নাইজিং রেডিয়েশন 
  • নিউরোফাইব্রোমাটোসিস
  • টিউবারাস স্ক্লেরোসিস 
  •  ভন হিপ্পেল-লিন্ডাউ রোগের মতো উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত এইসব রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। মোবাইল ফোন এক্সপোজার সম্পর্কিত গবেষণায় এখনো কোন পরিষ্কার ঝুঁকি দেখা যায়নি। 

প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে প্রাথমিক টিউমারগুলির মধ্যে অন্যতম হল মেনিনিংওমাস (সাধারণত সৌম্য-নন ক্যান্সারাস) এবং অ্যাস্ট্রোকাইটোমাস। শিশুদের মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ হল ম্যালিগন্যান্ট মেডুলোব্লাস্টোমা। কিছু লোকের মধ্যে মস্তিষ্কের টিউমার বেশি দেখা যায়। তবে আফ্রিকান-আমেরিকান লোকেরা মেনিনজিওমাস হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। কিছু নির্দিষ্ট রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের মস্তিষ্ক টিউমারের ঝুঁকি বেশি থাকে। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর ওকোপেশনাল সেফটি অ্যান্ড হেলথ ট্রাস্টেড সোর্স কাজের জায়গাগুলিতে সম্ভাব্য ক্যান্সারজনিত রাসায়নিক দ্রব্যের একটি তালিকা রাখেন। আয়নাইজিং রেডিয়েশনের সংস্পর্শে আসা লোকদের মস্তিষ্কের টিউমার হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। উচ্চ বিকিরণ ক্যান্সার থেরাপির মাধ্যমে আয়নাইজিং রেডিয়েশনের সংস্পর্শে আনা যেতে পারে। পারমাণবিক ফল আউট থেকে বিকিরণের সংস্পর্শে আসতে পারেন। যাদের চিকেন পক্সের ইতিহাস নেই তাদের মস্তিষ্কের টিউমারের কম ঝুঁকি থাকে। আমেরিকান ব্রেইন টিউমার অ্যাসোসিয়েশন অনুসারে, শৈশবে যাদের চিকেন ফক্স ছিল তাদের মস্তিষ্কের টিউমার হওয়ার ঝুঁকি কমে যায়। 

মাথাব্যথা হল মস্তিষ্ক টিউমারের একটি সাধারণ লক্ষণ। মাথা ব্যথা ছাড়াও যেসব লক্ষণ দেখা যায় তা হল-

১. সকালে ঘুম থেকে ওঠার সময় মাথা ভারী মনে হওয়া।

২. ঘুমানোর সময় মাথা যন্ত্রণা করা।

৩. কাশি, হাঁচি বা ব্যায়াম করার সাথে সাথে মাথায় আঘাত পাওয়ার মতো ব্যথা অনুভব হওয়া।

৪. বমি বমি ভাব

৫. অস্পষ্ট দৃষ্টি বা চোখে ঝাপসা দেখা।

৬.বিভ্রান্তি

৭.খিঁচুনি

৮. দুর্বলতা

৯. মানসিক কার্যকারিতা পরিবর্তন।

১০.আনাড়ি

১১. স্মৃতিশক্তি হ্রাস বা বারবার কিছু ভুলে যাওয়া

১২.লেখা বা পড়তে সমস্যা.

১৩. শুনতে, স্বাদ বা গন্ধের ক্ষমতার পরিবর্তন হয়।

১৪. সতর্কতা হ্রাস

১৫. খেতে অসুবিধা 

১৬. মাথা ঘোরা বা অজ্ঞান হয়ে যাওয়া।

১৭. চোখের পাতা বা চোখের পলক পড়া।

১৮. কাঁপুনি

১৯. ভারসাম্য হ্রাস

২০.মূত্রাশয় বা অন্ত্রের সমস্যা 

২১. শরীরের একপাশ অবশ হয়ে যাওয়া।

২২. মেজাজ, ব্যক্তিত্ব, আবেগ এবং আচরণের পরিবর্তন।

২৩. মুখ, বাহু বা পায়ে পেশী দুর্বলতা।

২৪. স্তনবৃন্ত স্রাব বা গ্যালাক্টোরিয়া।

২৫. মহিলাদের ঋতুস্রাবের সমস্যা দেখা দেয়। 

২৬.পুরুষদের মধ্যে স্তন টিস্যু বা গাইনোকোমাস্টিয়া বিকাশ

২৭.নিম্ন রক্তচাপ

২৮. স্থূলত্ব

শল্য চিকিৎসা, বিকিরণ থেরাপি এবং কেমোথেরাপির মাধ্যমে মস্তিষ্কের টিউমারের চিকিৎসা করা হয়। যদি খিঁচুনি দেখা দেয় তবে অ্যান্টিকনভুলাসেন্ট ওষুধ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকরা। চিকিৎসাগুলি যে কোনও ব্যক্তির প্রতিরোধ ব্যবস্থার উপর নির্ভর করে সেগুলো পর্যবেক্ষণ করা হয়ে থাকে। একটি টিউমারের ধরণের এবং এটি নির্ধারণের সময় কতটা ছড়িয়ে পড়েছে তার উপর নির্ভর করে যথেষ্ট চিকিৎসা ক্ষেত্রে পরিবর্তন আনা হয়। যদিও সৌম্য(নন ক্যান্সারাস)  টিউমারগুলি কেবল একটি অঞ্চলে বেড়ে ওঠে তবে তারা তাদের অবস্থানের কারণে কখনও প্রাণঘাতীও হতে পারে।  গ্লিওব্লাস্টোমাসের সাধারণত খুব খারাপ ফলাফল থাকে। তবে মেনিনিংওমাসের ভাল ফলাফল হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মস্তিষ্ক ক্যান্সারের জন্য পাঁচ বছরে বেঁচে থাকার হার ৩৩% হয়ে থাকে। 

মস্তিষ্ক ক্যান্সারের কিছু চিকিৎসা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। যেমনঃ 

  • মাথার সিটি স্ক্যান
  •  মাথার এম আর আই
  •  অ্যাঞ্জিওগ্রাফি
  • মাথার খুলির এক্স-রে 
  •  বায়োপসি ইত্যাদি।
  • মস্তিষ্ক টিউমারের চিকিৎসা নির্ভর করে-
  • টিউমার ধরণের
  • টিউমার আকার
  • টিউমার অবস্থানের উপর।
  • ম্যালিগন্যান্ট মস্তিষ্ক টিউমারের সবচেয়ে সাধারণ চিকিৎসা হল সার্জারি। 

মেটাস্ট্যাসিস মস্তিষ্কের টিউমারগুলি প্রাথমিক মস্তিষ্কের টিউমারগুলির থেকে প্রায় চারগুণ সাধারণ। ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত প্রায় অর্ধেক মেটাস্ট্যাসিস সাথে জড়িত। প্রাথমিক মস্তিষ্কের টিউমার বিশ্বব্যাপী বছরে প্রায় ২৫০,০০০ লোকের মধ্যে দেখা দেয়। যা ক্যান্সারের ২% এরও কম থাকে। ১৫ বছরের কম বয়সী শিশুদের মধ্যে ক্যান্সারের সর্বাধিক সাধারণ রূপ হিসাবে মস্তিষ্কের টিউমারগুলি তীব্র লিম্ফোব্লাস্টিক লিউকেমিয়ায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে।অস্ট্রেলিয়ায় মস্তিষ্কের ক্যান্সারের ক্ষেত্রে আজীবন অর্থনৈতিক ব্যয় ১.৯ মিলিয়ন ডলার।যে কোনও ধরনের ক্যান্সারের মধ্যে সবচেয়ে বড় ক্যান্সার হলো মস্তিষ্কের ক্যান্সার। 

বিভিন্ন গবেষণার পর জানা যায় সেল ফোন বা মোবাইল ফোনের বিকিরণ এবং মস্তিষ্কের টিউমারগুলির মধ্যে অনেক যোগসূত্র রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আইআরসি স্কেলে মোবাইল ফোন বিকিরণকে গ্রুপ ২ বি-তে শ্রেণিবদ্ধ করেছে – সেলফোন ব্যবহারের ফলে মস্তিষ্কের ক্যান্সার হতে পারে এপিডেমিওলজিকাল স্টাডির ভিত্তিতে যা ওয়্যারলেস এবং কর্ডলেস ফোনের ভারী ব্যবহারকারীদের মধ্যে গ্লিয়োমা ঝুঁকিতে কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। যখন এই অধ্যয়নগুলি পরিচালিত হয়েছিল, তখন জিএসএম (2G) ফোনগুলি ব্যবহার করা হয়েছিল।


আফিয়া ইমরাদ তাহাসিন

ইউনিভার্সিটি অফ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি চিটাগং 

বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড বায়োটেকনোলজি ডিপার্টমেন্ট 

তথ্যসূত্র –

  1. https://link.researcher-app.com/kQYi
  2. https://link.researcher-app.com/Tu2K
  3. https://youtu.be/9L7Lqa0pYqc
  4. https://youtu.be/jb3SDlNWnQI

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button