News

করোনা মহামারী ২০,০০০ বছর আগেও হয়েছিল!

একটি নতুন গবেষণায় দেখা যায়, করোনা মহামারীতে প্রায় ২০,০০০ বছর আগে পূর্ব-এশিয়াতে ছড়িয়ে পড়েছিল। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধ করতে প্রাচীন পূর্ব-এশিয়ার মানুষের কিছু জিনে মিউটেশন হয়েছিল। সেই জিনগুলো আজকের মহামারীর জন্য গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে।
বৃহস্পতিবার কারেন্ট বায়োলজি জার্নালে প্রকাশিত এই গবেষণায় নেতৃত্বদানকারী অ্যারিজোনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবর্তনীয় জীববিজ্ঞানী ডেভিড এনার্ড বলেছিলেন, “এটি আমাদের উদ্বেগজনক করে তুলবে।

এখনই যা চলছে তা প্রজন্ম এবং প্রজন্মান্ত ধরে চলতে পারে।”
বিগত কয়েক বছর ধরে ডাঃ এনার্ড এবং তার সহকর্মীরা ভাইরাসগুলির একটি অ্যারের ইতিহাস পুনর্গঠন করার জন্য মানুষের জিনোম এ বৈচিত্রতা খুঁজছিলেন এবং প্রাচীন করোনভাইরাসগুলি মানুষের মধ্যে নিজেদের চিহ্ন রেখে গেছে কিনা তা বিশ্লেষণ করছিলেন।
বিজ্ঞানীরা দেখতে পেয়েছিলেন, কিছু জিন যা করনোভাইরাসের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, তবে অন্য ধরণের রোগজীবাণুর জন্য নয় পূর্ব-এশীয় জনগোষ্ঠীতে ঐসকল জিনের মধ্যে ৪২ টি জিনের মিউটেশন ঘটেছে এবং এর একটি বিশাল প্রভাব রয়েছে সেখানকার মানুষের জিনোমে। সুতরাং বলা যায়, পূর্ব-এশিয়ার লোকেরা একটি প্রাচীন করোনভাইরাসকে খাপ খাইয়ে নিয়েছিল।
মহামারী মোকাবিলায় প্রকৃতিতে টিকে থাকার জন্য মানুষের জিনোমে পরিবর্তন ঘটে। একটি মিউটেশন ভাইরাল সংক্রমণের বিরুদ্ধে রক্ষা করতে পারে এবং এটি বংশ পরম্পরায় মধ্যে স্থানান্তরিত হতে পারে যা একটি জীবন রক্ষাকারী পরিব্যক্তি।
ড. এনার্ড এবং তাঁর সহকর্মীরা সারা বিশ্বে ২৬ ধরনের জনগোষ্ঠীর হাজার হাজার মানুষের
ডিএনএ তুলনা করেছেন বিশেষ করে ঐসকল জিন এর যা করনোভাইরাসের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, তবে অন্য ধরণের রোগজীবাণুর জন্য নয়। পূর্বে করোনা মহামারীর ঘটনাটি কোন সময়ে ঘটেছিল বিজ্ঞানীরা তা হিসাব করা চেষ্টা করেছিলেন এবং তারা দেখতে পান, এ অ্যান্টিভাইরাল মিউটেশনগুলো ২০,০০০ থেকে ২৫,০০০ বছর আগে হয়েছিল।

এটি একটি আশ্চর্যজনক অনুসন্ধান কারণ পূর্ব এশীয়রা তখন ঘনবসতিপূর্ণভাবে বাস করত না অর্থাৎ শিকারী-সংগ্রহকারীদের ছোট ছোট দল ছিল। বিবর্তনীয় জিনতত্ত্ববিদ আইদা অ্যান্ড্রেস এ বিষয়টি কিছুটা অনুধাবন করতে পেরেছিলেন। কিন্তু তিনি ভাবেননি যে, প্রাচীন মহামারীটি কত দিন আগে সংঘটিত হয়েছিল তা বের করা সম্ভব
হবে। “সময় একটি জটিল জিনিস,” তিনি বলেছিলেন। “আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি এটি এমন একটি বিষয় যা সম্পর্কে আমরা আত্মবিশ্বাসী হতে পারি না।” নতুন গবেষণায় চিহ্নিত জিনগুলি ড্রাগ টার্গেট হতে পারে বলে মনে করেন ড. অ্যান্ড্রেস। তিনি বলেন, “আপনি জানেন যে এগুলো গুরুত্বপূর্ণ। প্রকৃতপক্ষে, বিবর্তন সম্পর্কে এটি দুর্দান্ত
জিনিস।”


অরণি প্রিয়া বিশ্বাস,

নিজস্ব প্রতিবেদক, বায়ো ডেইলি

সূত্র: https://www.nytimes.com/2021/06/24/science/ancient-coronavirus-epidemic.html

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button