COVID-19

করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর হারে পুরুষরা কেন এগিয়ে?

সারাবিশ্ব এই মুহূর্তে করোনাভাইরাস সম্পর্কিত আতঙ্কে ভুগছে। তার মধ্যে আবার দেখা যাচ্ছে যে পুরুষদের মধ্যে আতঙ্কটা একটু বেশি কাজ করছে। কারণ সারাবিশ্বে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত এবং মৃত্যুর হারে পুরুষদের সংখ্যা নারীদের তুলনায় অনেক বেশি। বিশ্ব জুড়ে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে নারীদের চেয়ে অনেক বেশি পুরুষ মারা যাচ্ছেন। 

এ বিষয়ে চীনা গবেষকরা বলেছেন যে – একটি বৃহৎ সংখ্যার কোভিড-১৯ রোগীদের মধ্যে যারা মারা গিয়েছিলেন তাদের মধ্যে ৭০ শতাংশেরও বেশি পুরুষ ছিলেন। তারা আরও বলেছিলেন যে ২০০৩ সালে SARS-CoV এর প্রাদুর্ভাব থেকে তারা যে গবেষণা চালিয়েছিলেন সেখানেও একই রকম ফলাফল পেয়েছিলেন। Fig. 1

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) এক বিবৃতিতে জানিয়েছে যে ইউরোপে কোভিড-১৯ এ মৃত্যুর মধ্যে ৬৩ শতাংশ পুরুষ রয়েছে। ইতালির রোমের উচ্চতর স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউট এর এক সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, করোনাভাইরাস এর উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ইতালীয়দের মধ্যে ৮ শতাংশ পুরুষ এবং ৫ শতাংশ নারী মারা গিয়েছিলো। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক নগরীতে পুরুষরা নারীদের তুলনায় দ্বিগুণ হারে মারা গেছেন। নগরীর স্বাস্থ্য বিভাগ এপ্রিলের প্রথমদিকে একটি রিপোর্ট করেছিলো, যেখানে দেখা গেছে যে প্রতি ১ লক্ষ পুরুষের মধ্যে ৪৩ জন মারা যাচ্ছেন এবং প্রতি ১ লক্ষ নারীদের মধ্যে ২৩ জন মারা যাচ্ছেন। 

Fig: Comparative analyses of COVID-19 case fatality rates by country, sex and age.

Picture source: https://media.springernature.com/lw685/springer-static/image/art%3A10.1038%2Fs41577-020-0348-8/MediaObjects/41577_2020_348_Fig1_HTML.png?as=webp

কিন্তু কেন? পুরুষদের জিন, হরমোন, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বা আচরণ কি পুরুষদের এই রোগের প্রতি আরও বেশি সংবেদনশীল করে তুলে?

বিশ্বজুড়ে করোনা আক্রান্ত প্রতিটা দেশেই চিকিৎসক কিংবা নার্স, মানে যারা নিয়মিত রোগীর সংস্পর্শে যাচ্ছেন তাদের মধ্যে নারীর সংখ্যাই বেশি অথচ আক্রান্তের দিক থেকে পুরুষদের সংখ্যা বেশি, মৃত্যুর হারেও পুরুষ বেশি। এ বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও গবেষণার তথ্য চূড়ান্ত হয়নি। তবুও বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন গবেষণার মাধ্যমে এর পিছনে কিছু কারণ উল্লেখ করেছেন:

শ্বাসযন্ত্রের অসুস্থতা সম্পর্কিত পূর্ববর্তী গবেষণা অনুসারে এটি বলা সম্ভব যে যৌন হরমোন ইস্ট্রোজেন এবং টেস্টোস্টেরন এখানে একটি ভূমিকা পালন করে। বিভিন্ন গবেষণায় বলা হচ্ছে, নারীদের যে ইস্ট্রোজেন হরমোন থাকে সেটি তাদের রক্ষা করে। একারণে নারীদের এই করোনাভাইরাস এর বিরুদ্ধে যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকে সেটি পুরুষদের তুলনায় অনেক বেশি। আরেকটি গবেষণায় বলা হয়েছে, নারীদের যে XX ক্রোমোজোম থাকে এটি আসলে তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অনেকাংশে সাহায্যকারী। করোনাভাইরাস এর বিরুদ্ধে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এ কারণে তাদের অনেক বেশি থাকে। অন্যদিকে পুরুষদের(XY) X ক্রোমোজোম নারীদের তুলনায় একটি কম থাকে। X ক্রোমোজোমে নির্দিষ্ট ক্রিয়া সম্বলিত ১০০০ টিরও বেশি জিন রয়েছে। নারীদের(XX) দুটি X ক্রোমোজোমের উপস্থিতি বাফার সরবরাহ করে যদি একটি X ক্রোমোজোমের কোনও জিন পরিবর্তিত হয়ে যায়। পুরুষদের(XY) এই X ক্রোমোজোমের ব্যাকআপের অভাব রয়েছে, এ কারণে পুরুষরা বিভিন্ন ধরণের রোগে নারীদের তুলনায় বেশি ভুগে। এই X ফ্যাক্টর এর জন্যই পুরুষরা জন্মের পর থেকে প্রতিটি বয়সে নারীদের তুলনায় বেশি হারে মারা যায়। X ক্রোমোজোমে কমপক্ষে ৬০ টির মতো প্রতিরোধ প্রতিক্রিয়া জিন রয়েছে। এখানে একটি কথা বলে রাখা উচিত যে পুরুষদের তুলনায় নারীদের প্রতিরোধ ব্যবস্থা বেশি থাকা আবার সবসময় ভালোও নয়, কারণ এটি কিছু কিছু ক্ষত্রে নারীদের Lupus & Multiple Sclerosis এর মতো অটোইমিউন রোগের প্রতি আরও বেশি সংবেদনশীল করে তুলে। 

একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে পুরুষদের রক্তে Angiotensin Converting Enzyme 2 (ACE2) বেশি থাকে। SARS-CoV-2 যে ২ টি রিসেপ্টর ব্যবহার করে কোষে(Cell) এ প্রবেশ করে তার একটি হলো ACE2 যা X-linked এবং ইস্ট্রোজেন হরমোনের প্রভাবে এই রিসেপ্টর এর অভিব্যক্তি কমে যায়। অন্যদিকে Transmembrane Protease Serine 2 (TMPRSS2) নামক রিসেপ্টর এর অভিব্যক্তিতে অ্যান্ড্রোজেন হরমোন ভূমিকা পালন করে থাকে। এজন্যে মেয়েদের ক্ষেত্রে এই ভাইরাসের কোষে প্রবেশের প্রবণতা পুরুষের থেকে অনেকটাই কম। 

নারীদের নারী হরমোন যেমন তাদের রক্ষা করে, পুরুষদের পুরুষ হরমোন তাদের রক্ষা করে না। গবেষকরা কিছু ইঁদুরের উপর গবেষণা চালিয়ে দেখেছেন যে, যখন ইস্ট্রোজেন হরমোনটি সরিয়ে দিয়েছেন দেখা গেছে যে ইঁদুরদের মৃত্যুর হার বেড়ে গেছে কিন্তু যখন টেস্টোস্টেরন হরমোন সরিয়েছেন তখন দেখা যাচ্ছে যে মৃত্যুর হারে কোনও পরিবর্তন আসছে না। 

Toll-Like Receptor (TLR) এক ধরনের প্রোটিন যা ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া সহ বিভিন্ন অণুজীবের DNA, RNA এবং প্রোটিন কে সনাক্ত করে কোষ এর immune response কে সক্রিয় করে। TLR-7 এমন একটি রিসেপ্টর যা single stranded RNA কে সনাক্ত করে এবং Interferon-alpha সক্রিয় করে যা immune response কে বৃদ্ধি করে। TLR-7 এর expressions X-linked হওয়ায় নারীদের(XX) ক্ষেত্রে ভাইরাসের বিরুদ্ধে দ্রুত প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সক্রিয় হয়ে উঠে৷

আবার বয়স বাড়ার সাথে সাথে পুরুষদের অ্যান্টিবডি তৈরির জন্য দায়ী B cell এবং Adaptive immunity দ্রুত কমে যেতে থাকে। Fig. 2

Fig: Known sex differences that may impact immune responses to SARS-CoV-2 and COVID-19 progression.

Picture source: https://media.springernature.com/full/springer-static/image/art%3A10.1038%2Fs41577-020-0348-8/MediaObjects/41577_2020_348_Fig2_HTML.png?as=webp

গবেষণায় আরেকটি বিষয় খুব গুরুত্বসহকারে উঠেছে এসেছে, সেটি হলো ধূমপান। পুরুষদের ধূমপানজনিত সমস্যা অনেক বেশি। বিশ্বের সব দেশেই নারীদের তুলনায় পুরুষ ধূমপায়ী দের সংখ্যা অনেক অনেক বেশি। ধূমপান ACE2 রিসেপ্টরগুলির উচ্চতর অভিব্যক্তির সাথে সম্পর্কিত। তার মানে যারা ধূমপায়ী তাদের করোনায় আক্রান্ত হয়ে জটিলতা জনিত মৃত্যু হার অনেক বেশি। কিন্তু তারপরেও এখানে একটি প্রশ্ন উঠে আসে যে ধূমপান না করেও তো অনেক পুরুষ মারা যাচ্ছেন। সেটি কেন? গবেষণায় বলা হচ্ছে যে পুরুষরা স্বভাবতই ভ্রমণ করে বেশি, তাদের অফিস আদালতে যাওয়ার হার বেশি। উল্টোদিকে বেশিরভাগ নারী ই কিন্তু ঘরে থাকেন। এ কারণে পরিবেশ দূষণ এর ফলে পুরুষদের ফুসফুস নারীদের তুলনায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত থাকে। সেজন্য পুরুষদের ফুসফুস এই করোনাভাইরাস জনিত যে নিউমোনিয়া বা শ্বাসকষ্ট হয় সেটা এতো বেশি সহ্য করতে পারে না নারীদের মতো। 

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ জনিত অসুস্থতা। বাংলাদেশ সহ পৃথিবীর অন্যান্য যেকোনো জায়গায় পুরুষদের মধ্যে উচ্চরক্তচাপ, হৃদরোগের সংখ্যা অনেক বেশি এবং ফুসফুসের সমস্যাজনিত রোগের সংখ্যাও নারীদের তুলনায় অনেক বেশি। এই কয়েকটা কারণে গবেষকরা বলার চেষ্টা করছেন যে এই করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে নারীদের তুলনায় পুরুষরা অনেক বেশি ঝুঁকিপূর্ণ এবং তাদের মধ্যে মৃত্যুর হার বেশি। 

সুতরাং পুরুষদের মধ্যে যাদের ধূমপানের অভ্যাস রয়েছে তাদেরকে অবশ্যই ধূমপান পরিহার করতে হবে। আর যাদের ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপ জনিত সমস্যা রয়েছে তাদেরকে সবসময় এই সমস্যাগুলি নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। সেজন্য আপনি নিয়মিত ভিটামিন – সি এবং বেশি বেশি ফলমূল খেতে পারেন। পরিমাণমত ঘুম এবং নিয়মিত ব্যায়াম আপনার উচ্চরক্তচাপ জনিত সমস্যা অনেকাংশেই নিয়ন্ত্রিত রাখতে পারে। এবং পরিশেষে যেটা না বললেই নয়, আপনি ধূমপায়ী হয়ে থাকলে আপনাকে অবশ্যই সম্পূর্ণভাবে ধূমপান পরিহার করতে হবে। 


  • জেড এম তৌহিদুল ইসলাম সিজান
    শিক্ষার্থী, জিন প্রকৌশল ও জীবপ্রযুক্তি বিভাগ
    শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট

তথ্যসূত্র:

https://www.sciencealert.com/geneticist-explains-why-more-men-are-dying-from-covid-19-than-women

https://www.livescience.com/why-covid-19-more-severe-men.html

https://www.nature.com/articles/s41577-020-0348-8

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button